জাহাজে তোলা যায়নি ১৯০০ কনটেইনার রপ্তানি পণ্য


আজ রোববার সকালে তিনটি কনটেইনার জাহাজের চট্টগ্রাম বন্দর ছেড়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। এই তিন জাহাজে রপ্তানি হবে চার হাজার কনটেইনার পণ্য। এ জন্য গতকাল শনিবার রাতের মধ্যে চট্টগ্রামের ১৯টি বেসরকারি ডিপো থেকে এসব কনটেইনার বন্দরে নিতে হবে। পরিবহন ধর্মঘটের আগে প্রায় অর্ধেকসংখ্যক কনটেইনারে বন্দরে নেওয়া হলেও গতকাল রাত ১০টা পর্যন্ত ১ হাজার ৯০০ কনটেইনার বন্দরে নিয়ে জাহাজে তুলে দেওয়া যায়নি।

ধর্মঘটের প্রথম দিন আমদানি-রপ্তানি পণ্যবাহী কিছুসংখ্যক গাড়ি চলাচল করলেও দ্বিতীয় দিনে গতকাল সকালেই চট্টগ্রামের বেসরকারি ডিপো থেকে বন্দরে রপ্তানি পণ্য পরিবহন বন্ধ হয়ে যায়। তাতে ধর্মঘট শুরুর দুই দিনের মাথায় রপ্তানি পণ্য পরিবহনে এই অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে। আজ সকালে ছেড়ে যাবে এমন তিন জাহাজের একটি ‘এএস সিসিলিয়া’।

জাহাজটির স্থানীয় প্রতিনিধি ক্রাউন নেভিগেশন লিমিটেডের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক সাহেদ সরোয়ার গতকাল রাতে প্রথম আলোকে বলেন, সময়সূচি অনুযায়ী রোববার জাহাজটি শ্রীলঙ্কার কলম্বোর উদ্দেশে বন্দর ছেড়ে যাওয়ার কথা। সেখান থেকে ইউরোপ-আমেরিকাগামী বড় জাহাজে তুলে দেওয়া হবে বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্য। তবে ধর্মঘটের কারণে এখনো ডিপোতে আটকা আছে ৬৫০ কনটেইনার রপ্তানি পণ্য। এক দিন দেরির জন্যও এসব কনটেইনার ইউরোপ-আমেরিকার বন্দরে পৌঁছাতে এক সপ্তাহ বেশি সময় লেগে যেতে পারে।



Source link

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *