দক্ষিণ এশিয়ার খাদ্য উৎপাদন কমবে ১০ থেকে ৫০ শতাংশ


দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর ৫০ শতাংশেরও বেশি জনসংখ্যার জীবন ও জীবিকার প্রধান উপায় হচ্ছে কৃষি। কিন্তু আগামী দিনে কৃষির সবচেয়ে বড় হুমকি হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তন। বিশ্ব উষ্ণায়নের কারণে এই অঞ্চলে চলতি শতাব্দীর শেষে, ১০ থেকে ৫০ শতাংশ ফসলের উৎপাদন কমে যেতে পারে। যা এখানকার বিপুলসংখ্যক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য পাওয়াকে অনিশ্চিত করে তুলবে। যে কারণে জলবায়ু পরিবর্তন অভিযোজন এবং প্রশমন কৌশলগুলোকে একীভূত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

রাজধানীর বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলে গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত এক সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। সভায় সমস্যার সমাধানে নেওয়া একটি অংশীদারত্ব প্রকল্পের কথা জানানো হয়। বক্তারা জানান, দক্ষিণ এশিয়ার সব দেশে একযোগে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। যা দক্ষিণ এশিয়ার কৃষি ও খাদ্যসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা এবং দক্ষতা বৃদ্ধি করবে। টেকসই কৃষির উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এই প্রকল্প। যাতে জলবায়ু পরিবর্তনের আধুনিক কৌশল এবং প্রযুক্তির সমন্বয় করা হবে।

দক্ষিণ এশিয়ায় জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবকে সম্মিলিতভাবে মোকাবিলা করার গবেষণাভিত্তিক কৌশল তৈরির ক্ষেত্রে ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড ফর অ্যাগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্ট (ইফাদ), সার্ক অ্যাগ্রিকালচার সেন্টার (এসএসি), ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (ইফপ্রি) এবং সার্ক ডেভেলপমেন্ট ফান্ড (এসডিএফ) একসঙ্গে জলবায়ু পরিবর্তনের আধুনিক কৌশল আরও বেশি বেগবান করতে অংশীদারত্ব প্রকল্প চালু করেছে।

সভায় সার্কের মহাসচিব এসালারদায়ান উইরাকুন বলেন, এই প্রথম এ ধরনের আঞ্চলিক প্রকল্পটি সার্কভুক্ত দেশগুলোর ভেতরে এমন এক সময়ে চালু করা হয়েছে, যখন জলবায়ু পরিবর্তন, কৃষি ল্যান্ডস্কেপের জন্য একটি বড় হুমকি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।



Source link

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *