৮ গুণ ভাড়া দিয়ে অফিসে যাচ্ছেন রাকিব


বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মো. রাকিব হাসানের বাসা রাজধানীর মহাখালীতে। তাঁর কর্মস্থল উত্তরার রাজলক্ষ্মীতে। কর্মস্থলে যেতে তাঁর বাসভাড়া লাগত ১৫ টাকা। তিনি জানান, এখন সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ভাগাভাগি করে যেতে লাগছে ১০০ টাকা। একই পথে যেতে রিকশাওয়ালারা চাইছেন ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা।

রাকিব ক্ষোভ নিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, ধর্মঘটের কারণে এই বাড়তি ভাড়ার চাপ বেড়ে গেল। অফিস যাতায়াতে ভাড়া ৮ গুণ দিয়ে করতে হচ্ছে। এই চাপ সামলানো খুব মুশকিল। আবার অফিস যেতে আগে যেখানে এক ঘণ্টা আগে বের হলে হতো, এখন আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা আগে বের হতে হয়। তিনি বলেন, সড়কপথে সরকারের নিয়ন্ত্রণ নেই। পরিবহনশ্রমিকদের কাছে জনগণ জিম্মি। জনগণের সুবিধার কথা কেউ ভাবে না।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে আজ রোববারও রাজধানী ঢাকায় পালিত হচ্ছে পরিবহনমালিক ও শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘট। মহানগরীর ভেতরে আজও চলাচল করছে না কোনো বাস। রাজধানী থেকে ছেড়ে যাচ্ছে না আন্তজেলা ও দূরপাল্লার গণপরিবহন।

আজ সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবসে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোও খোলা। বাস বন্ধ থাকায় নির্ধারিত সময়ে অফিসে যেতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে অনেককে। বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। বিআরটিসির কিছু বাস ছাড়া কোনো বাস চলতে দেখা যাচ্ছে না।

বাস চলাচল বন্ধ থাকায় রাজধানীর সড়কে বেড়েছে ব্যক্তিগত গাড়ি, রিকশা, মোটরসাইকেল ও অটোরিকশা। অফিসগামী ব্যক্তিরা বিকল্প এসব বাহনে যাতায়াত করছেন। অনেকেই তিন থেকে চার গুণ বাড়তি ভাড়ায় এসব বাহনে কর্মস্থলসহ নির্দিষ্ট গন্তব্যে যাচ্ছেন। বাড়তি ভাড়ার কারণে অনেকে হেঁটে যাতায়াত করেছেন। গণপরিবহন নিয়ে সাধারণ মানুষের একরাশ ক্ষোভ।



Source link

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *